আদাবরে দুই শিশু দগ্ধ, ঘরের বাইরে ছিল ছিটকিনি লাগানো

রাজধানীর আদাবরে ঘরে আগুন লেগে দুই শিশু দগ্ধ হয়েছে। তাদের একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। অগ্নিকাণ্ডের সময় ওই শিশুদের ঘরের বাইরে থেকে ছিটকিনি লাগানো ছিল বলে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন।

দগ্ধ শিশু দুটির নাম মিতু ও বাপ্পী। মিতুর শরীরের প্রায় ৯৮ ভাগ পুড়েছে বলে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন আইয়ুব হোসেন নিশ্চিত করেছেন। এই চিকিৎসক প্রথম আলোকে বলেন, শিশু দুটির এভাবে পুড়ে যাওয়ার ঘটনা তদন্ত করা উচিত।

আবদুল মালেক নামের এক ব্যক্তি শিশু দুটিকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। আদাবরের সুনিবিড় ও শ্যামলী হাউজিংয়ের মাঝামাঝি জায়গায় আবদুল মালেকের বাড়ি। তাঁর বাড়ির ভাড়াটিয়া মৌ ও আলাউদ্দিন সম্পর্কে শিশু দুটির বোন ও দুলাভাই। ওই বাসাতেই আগুনে পুড়ে যায় শিশু দুটি।

আবদুল মালেক প্রথম আলোকে বলেন, তিনি বাড়ি থেকে বেরিয়ে শেখেরটেকে তাঁর রিকশার গ্যারেজে গিয়েছিলেন। হঠাৎ বাসা থেকে ফোন আসে যে আগুন লেগেছে। তিনি মিনিট পাঁচেকের মধ্যে বাসায় গিয়ে দেখেন শিশু দুটি পুড়ে গেছে। তখনই তিনি তাদের নিয়ে প্রথমে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল এবং পরে সেখান থেকে বার্ন ইনস্টিটিউটে যান।বিজ্ঞাপন

কী করে শিশুরা পুড়ে গেছে আবদুল মালেক নিশ্চিত নন। তিনি মিতু ও বাপ্পীর মা–বাবাকেও চেনেন না। আবদুল মালেক প্রথম আলোকে বলেন, ধোঁয়া দেখে তিনি তাঁর দোকানের কর্মচারীকে নিয়ে ছুটে যান।

আগুন লেগেছিল একটি দোতলা ভবনে। ওই ভবনের নিচতলায় মো. আরিফ নামের এক ব্যক্তির দোকান আছে। তিনিই আগুন লাগার পর প্রথম ঘটনাস্থলে পৌঁছান। দোতলায় গিয়ে দেখেন, বাইরে থেকে ছিটকিনি লাগানো। ভেতর থেকে শিশুদের গলার আওয়াজ ভেসে আসছিল।

আরিফ জানান, বহু চেষ্টার পর শিশু দুটি বাইরে বের হয়ে আসে। পরে সবাই মিলে ধরাধরি করে তাদের হাসপাতালে নেওয়া হয়।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published.