ধোনি হয়ে উঠতে কি পরিশ্রমটাই না করেছিলেন সুশান্ত…

আত্মঘাতী হওয়া বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের ক্যরিয়ারের সবচে বড় ব্রেক থ্রু ছিল ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির বায়োপিক ‘ধোনি : দ্য আনটোল্ড স্টোরি’। রিয়েল লাইফের মহেন্দ্র সিং ধোনিকে রিল লাইফে নিপুণ ভাবে ফুটিয়ে তুলেছিলেন সুশান্ত। তাঁকে ধোনি করে তুলতে যিনি দিনের পর দিনে ট্রেনিং দিয়েছেন ভারতের সাবেক উইকেটকিপার তথা কোচ কিরণ মোরে। সিনেমার জন্য তার কাছে ৮ মাস প্র্যাকটিস করেছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুত।

শুরুতে সুশান্ত সম্পর্কে কোনো ধারণাই ছিল না কিরণ মোরের। সুশান্ত কোনোদিন ক্রিকেট খেলেছেন কিনা সেটাও জানতেন না। তারপরেও কাজ শুরু করেন। আজ রবিবার বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতার রহস্য মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েছেন কিরণ মোরে। টুইটারে এই সাবেক উইকেট কিপার লিখেছেন, ‘ব্যক্তিগত ভাবে এটা আমার কাছ অত্যন্ত দুঃখজনক মুহূর্ত। এমএস ধোনির চরিত্রের জন্য ওকে আমি ট্রেনিং দিয়েছিলাম। এই শোক কী ভাবে আমি কাটিয়ে উঠবো তা জানি না। খুব দ্রুত চলে গেলে বন্ধু।’

২০১৬ সালে মুক্তি পেয়েছিল ধোনির বায়োপিক  ‘ধোনি : দ্য আনটোল্ড স্টোরি’। ব্যাপক ব্যবসাসফল হয়েছিল সেই মুভিটি। সিনেমার জন্য প্রস্তুত করতে সুশান্তকে ট্রেনিং দেওয়ার জন্য কিরণ মোরেকে অনুরোধ করেছিলেন ছবির পরিচালক। মোরে খুব কাছ থেকে দেখেছেন ধোনিকে। ভারত ‘এ’ দলের জিম্বাবুয়ে সফরের জন্য তরুণ ধোনিকে নির্বাচন করেছিলেন মোরে। ছবির পরিচালকও জানতেন, কিরণই পারবে সুশান্তকে ঘষেমেজে ‘ধোনি’ বানিয়ে তুলতে। কিন্তু কিরণ মোরে ভয় পাচ্ছিলেন, এভাবে হুট করে কাউকে উইকেটকিপার বানিয়ে তুলতে গেলে ইনজুরিতে পড়তে পারে।

অল্প বয়স থেকে ক্রিকেট শেখা এক রকম আর ত্রিশ উত্তীর্ণ কাউকে খেলা শেখানো সম্পূর্ণ অন্য ব্যাপার। তাও আবার বিশ্বখ্যাত এক ক্রিকেটারকে ছবিতে তুলে ধরা। সেই ক্রিকেটার যদি ধোনি হন, সেটা আরও চ্যালেঞ্জিং। কিন্তু সুশান্ত অনুশীলন শুরু করতেই মোরে বুঝতে পারেন, খুব ভালো ছাত্র পেয়েছেন তিনি। সকাল সাড়ে ৬ টা থেকে সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত অনুশীলন করতেন সুশান্ত। একটা সেশনে ৪০০ বল খেলতেন। ১৫০-২০০টা বল কিপিং করতেন। উচ্চতা বেশি হওয়ায় শুরুর দিকে কিপিং করতে সমস্যায় পড়তেন সুশান্ত। ১৫ দিন পরপর তার উন্নতি দেখা হতো।

ধোনির বিখ্যাত হেলিকপ্টার শট, দুই উইকেটের মাঝে দৌড়নো নিখুঁতভাবে রপ্ত করেছিলেন সুশান্ত। এজন্য তাঁকে অনেক ঘাম ঝরাতে হয়েছিল। সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার দিনকয়েক আগে মজা করে মোরে বল‌েছিলেন, ‘ধোনি ছাড়া কেউই সুশান্তের মতো এখন হেলিকপ্টার শট মারতে পারবে না।’ সিনেমায় ধোনি-চরিত্র ফুটিয়ে তোলার জন্য প্রশংসিত হয়েছিলেন সুশান্ত। ছবিটি করার সময় ধোনির সঙ্গে তার বন্ধুত্ব তৈরি হয়েছিল। নিজের মানসিক যন্ত্রণা, হতাশা, অবসাদ ধোনির সঙ্গে শেয়ার করতেই পারতেন সুশান্ত। বহু জয়ের নায়ক ‘ক্যাপ্টেন কুল’ খ্যাত ধোনি তাকে অবশ্যই কোনো না কোনো পথ দেখিয়ে দিতেন।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published.