বিপিএল ইতিহাসের নয়া রেকর্ড

আজ বুধবার বিপিএল ইতিহাসের নয়া রেকর্ড সৃষ্টি হলো। আজ বিপিএল এর চট্টগ্রাম পর্বে ঢাকা প্লাটুন এবং চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স এর মধ্যেকার ম্যাচে দুইদলের দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়ে। আজ টসে জিতে ঢাকা প্লাটুন এর অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা বোলিং এর সিদ্ধান্ত নেয়। ব্যাটিং এ নেমে চট্টগ্রামের দুই ওপেনার দারুণ সূচনা করেন। দুইজন মিলে ৪.৪ ওভারে ৫১ রান তুলে নেয়। দলীয় ৫১ রানের মাথায় অভিষেক ফেরান্ডো হাসান মাহমুদের বলে বোল্ড আউট হলে তাদের পার্টনারশিপ ভাঙ্গে। ৩য় উইকেট ইমরুল কায়েস আর লিন্ডল সিমন্সের জুটিতে আরো ৫০ রান আসে। দলীয় ১০১ রানের মাথায় সিমন্স রান আউট হলে তাদের জুটি ভাঙ্গে। পরবর্তী উইকেট জুটিতে মাহমুদুল্লাহ আর ইমরুল কায়েস মিলে ৬২ রানের ইঙ্গিং খেলেন। যেখানে ইমরুল কায়েস ২৪ বলে ৪০ রান সংগ্রহ করে। ৫ম উইকেট জুটিতে মাহমুদ উল্লাহ এবং চ্যাডউইক ওয়ালটন মিলে ২৮ রানের পার্টনারশিপ গড়ে। ১৯১ রানের মাথায় মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদের ঝড়ো ২৮ বলে ৫৯ রানের ইনিংস থামে। পরবর্তী উইকেট জুটিতে ওয়ালটন আর সোহান মিলে ৩০ রান যোগ করলে দলীয় সংগ্রহ নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ২২১ রান দাঁড়ায়। ঢাকার পক্ষে হাসান মাহমুদ দুইটি আর সালাউদ্দিন সাকিল ১ টি উইকেট লাভ করে।

মাহমুদ উল্লাহ চট্টগ্রামের হয়ে সর্বোচ্চ ৫৯ রান সংগ্রহ করেন ২৮ বলে

২২২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৮ রানের মাথায় এনামুল হক বিজয়ের উইকেত হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ঢাকা। পরবর্তী উইকেট জুটিতে মমিনুল হক আর জাকের আলী মিলে ৫২ রান করলে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেয় ঢাকা। দলীয় ৬০ রানের মাথায় জাকের আলী আউট হলে ও পরবর্তী উইকেট জুটিতে ইভান্স কে নিয়ে দলীয় সংগ্রহ বড় করতে থাকে মমিনুল হক। কিন্তু দলীয় ৮২ রানের মাথায় ইভান্স এর উইকেট হারালে আবারো চাপে পড়ে যায় ঢাকা। এরপর আসিফ আলীকে নিয়ে দলের রান এগিয়ে নিতে থাকে মমিনুল হক। দলীয় ১০৬ রানের মাথায় আসিফ আলী আউট হলেও মমিনুল হক তার স্বাভাবিক খেলা চালিয়ে যেতে থাকে। কিন্তু দলীয় ১২২ রানে মমিনুল হক আউট হয় ৫২ রান করে। পরবর্তী সময়ে শহীদ আফ্রিদি আর থিসারা পেরারা ঝড়ো গতিতে রান এগিয়ে নিতে থাকে। কিন্তু দলীয় ১৪৬ রানের মাথায় আফ্রিদি আউট হলে আবারো চাপে পড়ে যায় ঢাকা। পরবর্তী উইকেট জুটিতে মাশরাফি মর্তুজার ৬ বলে ২৩ রানের ক্যামো ইনিংসে মনে হয়েছিলো ম্যাচটা সহজে জিতে যাবে ঢাকা। কিন্তু দলীয় ১৭২ রানে মাশরাফি আউট হলে মূলত ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় ঢাকা। পরবর্তী সময়ে থিসারা পেরারা একা প্রচেষ্টা চালিয়ে যায়। কিন্তু ইনিংসের শেষ বলে পেরারা আউট হয় ২৭ বলে ৪৭ রানের ঘূর্নি ইনিংস খেলে। ফলে ২০৫ রানে অলআউট হয় ঢাকা। ফলে চট্টগ্রাম ১৬ রানের জয় পায়। এই জয়ে ৫ ম্যাচে ৪ জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে এসেছে চট্টগ্রাম। চট্টগ্রামের পক্ষে ৩টি করে উইকেট লাভ করে মেহেদী হাসান রানা ও মুক্তার আলী। ২টি করে উইকেট লাভ করে নাসির হোসেন ও উইলিয়ামস। ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হোন চট্টগ্রামের মেহেদী হাসান রানা।

মেহেদী হাসান রানা ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হন

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *