বিপিএল চট্টগ্রাম পর্বে রানের বন্যা

বঙ্গবন্ধু বিপিএল ২০১৯ এ এবার চট্টগ্রাম পর্বে রানের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। আজ শুক্রবার দিনের ২য় ম্যাচে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স এবং কুমিল্লা ওয়ারিয়ার্স এর মধ্যেকার ম্যাচে তা আবার ফুটে উঠল। আজ বিপিএল ১৪ তম ম্যাচে চট্টগ্রাম ওয়ারিয়ার্সের বিপক্ষে প্রথমে টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন দাসুন সানাকা। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দারুণ সূচনা করেন চট্টগ্রামের দুই ওপেনার লিন্ডল সিমন্স এবং অভিষেক ফ্যারান্ডো। কিন্তু দলীয় ২১ রানের মাথায় লিন্ডল সিমন্স আউট হলে প্রথম ধাক্কা খায় চট্টগ্রাম। কিন্তু ৩য় উইকেট জুটিতে ইমরুল কায়েসের সঙ্গে দারুণ জুটি বাঁধে ওপেনার অভিষেক ফ্যারান্ড। এই জুটিতে দুইজনে মিলে স্কোর বোর্ডে ৮৫ রান যোগ করে। দলীয় ১০৬ রানের মাথায় অভিষেক আউট হয়। ৪র্থ উইকেট জুটিতে ইমরুল এবং চার্ডউইক ওয়ালটন মিলে ২৮ রান যোগ করে ইমরুল কায়েস ব্যক্তিগত ৬২ রানে আউট হয়। ৫ম উইকেটে নাসির হোসেন নামলে ও ব্যাক্তিগত মাত্র ৩ রানে দলীয় ১৩৯ রানে আউট হয়। ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে ঝড় তুলে চট্টগ্রামের দুই ব্যাটসম্যান অভিষেক ফ্যারান্ডো এবং উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান। এই দুইজন মিলে ৯৯ রানের পার্টনারশিপ গড়ে দলীয় ২৩৮ রানে ইনিংস শেষ করে। কুমিল্লার হয়ে সৌম্য সরকার ২টি, দাসুন সানাকা এবং মজিবুর রহমান উইকেট লাভ করেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দারুণ শুরু করে কুমিল্লার দুই ওপেনার সৌম্য সরকার এবং রাজপাকশে। কিন্তু দলীয় ২১ রানে জোড়া আঘাত হানে মেহেদী হাসান রানা। এক ওভারে কুমিল্লার দুই ওপেনার সৌম্য সরকার এবং রাজাপাকশেকে আউট করেন বাঁ-হাতি এই বোলার। দলীয় ৩২ রানে সাব্বির রহমানকে নিজের ৩য় শিকার বানান রানা। কিন্তু ৫ম উইকেট জুটিতে দারুণ এক পার্টনারশিপ করে কুমিল্লার দুই ব্যাটসম্যান ইয়াসির আলী এবং দাউদ মিলান। দলীয় ৯০ রানে ইয়াসির আলী আউট হলে এই জুটি ভাঙ্গে। এরপর অধিনায়ক সানাকাকে নিয়ে চট্টগ্রামে তান্ডব চালাতে থাকে মিলান। এই দুইজন মিলে ৬২ রানের পার্টনারশিপ গড়ে। দলীয় ১৫২ রানের মাথায় মিলানকে নিজের ৪র্থ শিকার বানান রানা। মূলত এইখানে জয় থেকে ছিটকে যায় কুমিল্লা। পরবর্তীতে অধিনায়ক সানাকে, উইকেট কিপার মাহিদুল ইসলাম, পেস বোলার আবু হায়দার রণি স্কোর ২২২ পর্যন্ত নিয়ে গেলেও তা জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিলো না। ফলে ১৬ রানে জয় লাভ করে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। চট্টগ্রামের পক্ষে ৪টি উইকেট লাভ করে মেহেদী হাসান রানা এবং একটি করে উইকেট লাভ করে রুবেল হোসেন, মুক্তার আলী এবং উইলিয়ামস। ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হোন চট্টগ্রামের চাডউইক ওয়ালটন।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!