মিরপুরে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো ‘নিজের বলার মত একটা গল্প’ ফাউন্ডেশনের ২য় উদ্যেক্তা মহাসম্মেলন

৪ই জানুয়ারী রোজ শনিবার মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো উদ্যেক্তা তৈরির অনলাইন প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনাকারী গ্রুপ ‘নিজের বলার মত একটা গল্প’ ফাউন্ডেশন এর দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাতাবার্ষিকী। এই উপলক্ষ্যে সারা বাংলাদেশের ৬৪ জেলা এবং বিশ্বের প্রায় ৫০টি দেশ থেকে আসা ৫০০০ হাজার তরুণ তরুণীর মহাসম্মেলন ঘটে।

এই সম্মেলন তৈরির মূল কারিগর ইকবাল বাহার জাহিদের সঞ্চালনে এই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ডাক ও টেলি যোগাযোগমন্ত্রী জনাব মোস্তফা জাব্বার। আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তরের মেয়র জনাব আতিকুল ইসলাম, মোটিভেশনাল স্পিকার আরিফুল ইসলাম, বর্তমান সময়ে তরুণদের কাছে পরিচিত ও খুবই জনপ্রিয় মোটিভেশনাল স্পিকার সুলেমান সুখন, আয়মান সাদিক, কর্পোরেট ট্রেইনার ও মোটিভেশনাল স্পিকার ডন সামদানি, আরিফুল ইসলাম, গ্লোবাল কোডার্স ট্রাস্ট এর কো-ফাউন্ডার জনাব আজিজ আহম্মেদ, BACCO এর জেনারেল সেক্রেটারি জনাব তৌহিদ হোসেন, আইপিডিসি এর প্রেসিডেন্ট মামুন সহ আরো অনেকে।

সকাল ৯টায় জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার মধ্যে দিয়ে অনুষ্টান শুরু হয়। প্রথমে তরুণদের উদ্দেশ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেয় গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা জনাব ইকবাল বাহার জাহিদ। এরপরে এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করেন ঢাকা উত্তরের সদ্য মেয়র আতিকুল ইসলাম। এই সময় ‘নিজের বলার মত গল্প’ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা জনাব ইকবাল বাহার জাহিদ আতিকুল ইসলামকে ক্রেস্ট প্রদান করেন। এরপর বক্তব্য দেন প্রধান অতিথী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় মন্ত্রী জনাব মোস্তফা জাব্বার। এই সময় তিনি বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরেন এবং তরুণদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হতে উৎসাহ দান করেন। তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সবাইকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানান। এরপর খন্ডে খন্ডে বিভিন্ন অতিথীরা তাদের বক্তব্য দান করে এবং এই ফাউন্ডেশনের কল্যাণে যারা উদ্যেক্তা হয়েছে তাদের অনেকে তাদের সাফল্যের গল্প অতিথী এবং অন্যান্য প্রশিক্ষাণার্থীদের সামনে তুলে ধরেন। বিকাল বেলা অতিথী ও প্রশিক্ষাণার্থীদের সামনে অনুপ্রেরণাদায়ক ও জীবনগঠনমূলক বক্তব্য প্রদান করেন জনপ্রিয় সব মোটিভেশনাল ও কর্পোরেট ট্রেইনারগণ। তারা প্রত্যেকে তাদের বক্তব্য চলাকালীন সময়ে ‘নিজের বলার মত একটা গল্প’ ফাউন্ডেশনের সাথে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

সকলের ট্রেইনারদের বক্তব্য শেষে বাংলাদেশের ৬৪ জেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ ভলেন্টিয়ার ও শ্রেষ্ঠ জেলা উল্লেখ করে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। কাজের ভিত্তিতে শ্রেষ্ঠ প্রবাসে অবস্থানকৃত ভলেন্টিয়ারদের ও সম্মাননা প্রদান করা হয়। উল্লেখ্য যে, মহাসম্মেলন উপলক্ষ্যে ইনডোর স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে উদ্যেক্তা মেলা অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে বিভিন্ন উদ্যেক্তাগণ তাদের পণ্য নিয়ে স্টল সজ্জিত করেন। এছাড়াও মেলা উপলক্ষ্যে বিনামূল্যে রক্তদান কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যায় ৭টায় সম্মেলন এর পরিসমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

চলুন দেখে আসি উদ্যেক্তা সম্মেলনের কিছু খন্ডচিত্রঃ

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published.